Honda H100s CDI, স্পেসিফিকেশন, ফিচার রিভিউ, দাম, টপ স্পীড

হোন্ডা কোম্পানি ১৯৮৬ সালে নিয়মিত বাইকারদের জন্য উপহার হিসাবে হোন্ডা সিডিআই এইচ ১০০ সিসি তৈরি করে । আমরা সবাই হোন্ডা কোম্পানির বাইকের গুনগত মান সম্পর্কে সবাই জানি। এই বাইকের একটি আশ্চর্যজনক আকর্ষণ ক্ষমতা আছে যা দ্বারা মোটরসাইকেল টি কেবলমাত্র বাংলাদেশী বাজারে নয় বরং সারা বিশ্বকে প্রভাবিত করেছে। যদিও হোন্ডা কোম্পানি উন্নয়নশীল দেশ গুলো টার্গেট করে তৈরি করেছিল কিন্তু ইউরোপে সহ বিশ্বজুড়ে বাইকটি ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেছিল। এই মোটরসাইকেল তৈরির পূর্বে  হোন্ডা  কোম্পানি তাদের আরেকটি চোখ ধাঁধানো  আকর্ষণীয় মোটরসাইকেল রোডমাস্টার সিডি ২০০ সিসি বাজারে মুক্তি দেন। হোন্ডা সিডিআই এইচ ১০০ সিসি রোডমাস্টার সিডি ২০০ সিসি মতো মোটরসাইকেলের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। এই মোটরসাইকেলের সামগ্রিক পারফরম্যান্স সেই সময়ের জন্য ভাল কারণ ১৯৮৬ সালে নিয়মিত বাইকারদের এর মতো সত্যিই মোটরসাইকেল প্রেমীদের জন্য একটি উপহার। এখন দেখে নেয় মোটরসাইকেল টি তে কি আছে -


Honda H100s CDI, স্পেসিফিকেশন, ফিচার রিভিউ, দাম, টপ স্পীড


ডিজাইন


১৯৮৬ সালের মোটরসাইকেল হিসাবে হোন্ডা এর ডিজাইনাররা বাইকটির সর্বোত্তম লুক দেওয়ার জন্য তাদের যথাসাধ্য চেষ্টা করেছিল। তাই মোটরসাইকেলটি একটি আকর্ষণীয় চেহারা পেয়েছিল এবং এটি বাজারে আয়ত্ত করার জন্য যথেষ্ট ছিল। বিভিন্ন রঙের প্রাপ্যতার কারণে মোটরসাইকেল প্রেমীরা প্রচুর পরিমাণে এটি গ্রহণ করেছিল। হোন্ডা সিডিআই এইচ ১০০ সিসি কালো, বাদামী, এবং লাল রঙে পাওয়া যায়। কিন্তু সাধারণত আমাদের বাংলাদেশী রাস্তায় লাল রঙ্গয়ের বাইক দেখা পাওয়া যেত। হেডলাইটের বর্গক্ষেত্র আকৃতি মোটরসাইকেলটির সৌন্দর্য বৃদ্ধি করেছে। স্টিল ক্র্যাডেল ফ্রেমটি হোন্ডা সিডিআই এইচ ১০০ সিসিতে ব্যবহৃত হয় যা বাইকটিকে আরও টেকসই করে তোলে।


Honda H100s CDI, স্পেসিফিকেশন, ফিচার রিভিউ, দাম, টপ স্পীড


ইঞ্জিন


হোন্ডা সিডিআই এইচ ১০০ এর একক সিলিন্ডার রয়েছে এবং বাইকটি টু - স্ট্রোক ১০০ সিসি ইঞ্জিন। কিন্তু উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো ইঞ্জিনটিতে  ওয়েল কুলিং ও  এয়ার কুলিং ব্যবস্থা রয়েছে যেখানে রোডমাস্টার সিডি ২০০ সিসিতে কেবলমাত্র এয়ার কুলিং ব্যবস্থা রয়েছে। এই মোটরসাইকেলটিতে কোন বৈদ্যুতিক স্টার্ট সিস্টেম নাই তাই মোটরসাইকেলটি স্টার্ট করার একমাত্র উপায় হল কিক স্টার্ট। ডিজিটাল ইগনিশন সিস্টেম এবং ৪ -স্পিড ম্যানুয়াল ট্রান্সমিশন সিস্টেম অন্যান্য ১০০ সিস বাইক থেকে আলাদা তৈরি করা হয়েছে । ক্লাচ প্লেট সিস্টেমে হোন্ডা সিডিআই এইচ ১০০ সিসি ব্যবহার করা হয়। ইঞ্জিন কম্পন বিরক্তিকর এই মোটরসাইকেলে কিন্তু এই মোটরসাইকেল সম্পর্কে একটি বাস্তব ধারণা পেতে অবশ্যই আপনার এই মোটরসাইকেলটি চালানো প্রয়োজন।

টায়ার এবং ব্রেক


বাইকটির উভয় পাশেই  ড্রাম ব্রেক সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে। এই বাইকটিতে ব্যবহৃত টায়ারগুলি কেবল ভাল তবে এটি  খারাপ রাস্তাতে আপনাকে ভাল সেবা দিতে  পারবে না। কিন্তু সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ করলে টায়ারের স্থায়িত্ব কাল উন্নত করতে পারবেন।

ফুয়েল এবং স্পিড


হোন্ডা সিডিআই এইচ ১০০ সিসির জ্বালানি দক্ষতার সবচেয়ে মজার ব্যাপার হল এটি প্রতি লিটার মাত্র ২0 কিলোমিটার ! হোন্ডা থেকে এটি সত্যিই অপ্রত্যাশিত এবং এটি ১০০ সিসি সিরিজ বাইকের জন্য লজ্জাজনক। এই মোটরসাইকেলটির জ্বালানি ধারণ ক্ষমতা ১৮ লিটার যা ১০০ সিসি মোটরসাইকেল জন্য ভালো। ১৯৮৬ সালের পরিস্থিতিতে এটি ভাল হতে পারে তবে ২০১৯ সালের পরিস্থিতিতে এটি অনেক খারাপ। হোন্ডা সর্বদা দুর্দান্ত বাইক তৈরি করে কিন্তু গতির কারণে জ্বালানি  খরচ অত্যাধিক। এই সাইকেলে প্রতি ঘণ্টায় ১২৫ কিলোমিটার গতিতে ছুটতে সক্ষম। সবচেয়ে বিস্ময়কর হচ্ছে ৬০ কিলোমিটার গতি অর্জনের জন্য কেবলমাত্র ১২ সেকেন্ড সময় নেয়। এটিহোন্ডা সিডিআই এইচ ১০০ সিসির মত একটি মোটরসাইকেল এর জন্য সত্যিই আশ্চর্যজনক। প্রকৃতপক্ষে মোটরসাইকেল গতির কারণে বিশাল জনপ্রিয়তা পেয়েছিল।

Honda H100s CDI, স্পেসিফিকেশন, ফিচার রিভিউ, দাম, টপ স্পীড


কর্মক্ষমতা এবং অন্যান্য বৈশিষ্ট্য


এটি বাংলাদেশী বাইকারদের বিশেষ করে গ্রামে বসবাসকারী ব্যক্তিদের জন্য পছন্দ হতে পারে। তারা স্বল্প দূরত্বের জন্য এটি ব্যবহার করতে পারেন। হোন্ডা সিডিআই এইচ ১০০ সিসি এর সামগ্রিক পারফরম্যান্স ১৯৮৬ সালের মুক্তিপ্রাপ্ত ১০০ সিসি সিরিজের জন্য বেশ সন্তোষজনক। বাইকটি বাংলাদেশি রাস্তাটির জন্য খুব উপযোগী কিন্তু টায়ার আপনাকে সমস্যা দিতে পারে। যদিও এনালগ স্পিডোমিটারটি বেশি আকর্ষণীয় না হলেও এই মোটরসাইকেল সামগ্রিক নকশা দ্বারা তৈরি হয়েছে। এই বাইকটিতে একটি ভাল আকৃতির হ্যান্ডেল বার রয়েছে যা একটি আরামদায়ক যাত্রার জন্য খুবই প্রয়োজনীয়। হোন্ডা লোগো সহ একটি জ্বালানি ট্যাংক আছে যা বাইকটিকে সুন্দর এ পরিণত করেছে। এই মোটরসাইকেল এর একটি ইতিবাচক দিক হল জ্বালানী ট্যাঙ্ক  ৮.৭৬ গ্যালন ফুয়েল ধারণ করতে সক্ষম।

You Might Like -

Yamaha R15 V3 এর স্পেসিফিকেশন, ফিচার রিভিউ, দাম, টপ স্পীড

TVS Apache RTR 160 4V এর স্পেসিফিকেশন, ফিচার রিভিউ, দাম, টপ স্পীড
Previous Post
Next Post
Related Posts

0 Comments: